Shahajpath High School

Children are amused easily. Sheer sense of wonder, unbridled curiosity, lively and liveliness and enthusiasm, the will to be like someone they adore – all these are the innate characteristics of every child. The curriculum of Shahajpath has been based on these characteristics of children. Every step of the school’s child education has been designed keeping in mind their relentless questions, their imagination and thought process. Paying proper importance to children’s dignity, rights and responsibility is absolutely necessary in the philosophy of education. But, elders often do not remember that a child has the right to get respect. The work planning of Shahajpath always tries to ensure children’s dignity and rights.

The start of Shahajpath, its build-up, its progress – all this has been possible because of a group of people, who have dedicated their lives to child education, working in the field for more than 20 years. The institution operates through a direct coordination among four bodies: the Trusty Board, the Suhrid Sangsad, the Project Management Council, and the Advisory Council. Not just as the driving force, it is because these bodies own and patronise Shahajpath’s philosophy of education that the school today dreams of a world-class child-friendly education system.

The Easy 7 of Shahajpath – Easy philosophy of child education

1. Shahajpath means children’s haven

Shahajpath started with the vision of equipping students with the mentality of becoming better knowledge-seekers than just securing good results in institutional examinations. Child education should not be just teacher-centric. There must be the environment in the school so that a child can ask anything without hesitation; a teacher-centric education system allows limited scope for a student to ask questions. Teachers of Shahajpath are called education activists. Shahajpath does not believe in “teaching” students, it rather believes in a child’s ability to learn. Children learn through their inherent nature with the help of various components and our education activists create an environment conducive to that learning process – through music, dance, acting, story-telling and practical presentations. Since there is no typical pressure of the syllabus, our children learn without any fear – but with joy. They can ask our education activists any questions without any kind of hesitation – to learn something in their own preferred way. This may sometime embarrass the education activist, but ultimately they become the favourites of our children.

Shahajpath pays equal importance to teaching English besides the mother tongue. The school takes children on outing to bring them close to nature and to let them learn from first-hand experiences. Shahajpath respects every child’s personality and individuality to keep their inherent power of imagination and creativity unhurt. We do not discriminate based on religion, colour, gender, family status, region, talent and, of course, any kind of physical or intellectual disability. The traditional rules imposed on child education usually restrict the environment of learning. Shahajpath wants social values to flourish in children in a way so that they can feel comfortable yet feel free while being within rules and regulations.

2. Shahajpath means the joy of homework

There are no regular homework up to Class II. These students are only assigned some creative projects that we believe they can do on their own. Regular homework begins from Class III. Homework is specially necessary from this stage because the habit of study builds up and a student’s personality develops through these homeworks. A child does their homework themselves. There is no possibility of being scolded even if their homework does not meet the standard. Parents’ help is needed so that they do not impose their own methods of learning or their opinions on the children, which can result in the children being burdened with dual education systems and, ultimately, hampering the real goal of education. Parents must supervise that children are doing their homeworks timely and inspire them to that end. They will also provide the materials required for the projects assigned by the school.

3. Shahajpath means getting rid of home tutor-dependence

There will be no home tutors for the children. Also, the parents and any relatives will not act as home tutors. If a child needs a home tutor, the school and the parents will discuss and decide on the matter. Shahajpath does not approve of the idea of having home tutors to help the child without informing the school – which Shahajpath believes will eventually hamper the child’s development.

4. Shahajpath means an exam and evaluation method friendly for talent development

Up to a certain age, a child’s only job is to take and hold. The child grows up, continuously taking in through a day’s activities. For a child to be able to explain what they learn shows their potential. Examination is a type of presentation, the appropriate age for which comes still later. The traditional method of evaluating a student is unscientific and a barrier to the development of the child, because proper evaluation of a child’s ability to take and learn cannot be done through the traditional exam method. This is why Shahajpath has no traditional exams up to Class III, but the school has its own method to evaluate a child based on their daily activities. Traditional exams start from Class IV but Shahajpath’s own evaluation process continues.

5. Shahajpath means home’s involvement for child’s overall development

As much as a proper standard school is necessary for the overall development of a child, the role of the parents and other family members at home is similarly important. These two social institutions – the home and the school – are not supplementary to each other for a child’s growing up – both are important in their own ways. Both the father and mother can paly an important role at home in their child’s growing up through mutual understanding or together. There is no need for training or education to be come a father and mother, but to become the child’s guardians requires playing some specific roles.

6. Shahajpath means a uniform that colours the child’s mind

Decent dress helps build a child’s personality, it helps a child to become confident. Shahajpath has different colourful uniforms for the children of different ages – bright colourful cotton dresses, which are also very simple. There are arrangements for separate dresses and aprons for playing, the cooking classes, art or pottery class, and the laboratory.

7. Shahajpath means a non-discriminatory bond to go forward together

Shahajpath provides food for the children. They are discouraged to bring food from home. A socially non-discriminating bond is created through eating native and seasonal food together.

In this open world of immense possibilities in the 21st century, there is no alternative to building a child-friendly society. If you dream of a beautiful future for your child, for the country– a future that competes with the rest of the world, with pride– instead of the traditional education system that depends on memorisation, then join us in this journey of education with Shahajpath.

সহজপাঠ-এর শুরুর কথা

শিশুরা অল্পতেই আনন্দিত হয়। অপার বিস্ময়বোধ, সীমাহীন কৌতূহল, প্রাণচাঞ্চল্য ও উদ্যম, কারো না কারো মতো হওয়ার ইচ্ছা নিয়ে বেড়ে ওঠা- এসবই শিশুর সহজাত বৈশিষ্ট্য। ওদের এই বৈশিষ্ট্য বা গুণের ওপর ভিত্তি করেই গ্রহণ করা হয়েছে সহজপাঠের শিশুশিক্ষা কার্যক্রম। শিশুর অবিরাম জিজ্ঞাসা, কল্পনা এবং চিন্তাশক্তির প্রতি গভীর মনোযোগ রেখেই সাজানো হয়েছে শিশুশিক্ষা কার্যক্রম পরিকল্পনার প্রতিটি ধাপ। শিক্ষাদর্শনের দিক থেকে অত্যন্ত জরুরি হলো শিশুর মর্যাদা, অধিকার ও দায়িত্বের প্রতি যথাযথ গুরুত্ব দেওয়া। কিন্তু শিশু যে মর্যাদা পাবার অধিকার রাখে, বয়োজ্যেষ্ঠরা তা প্রায়ই মনে রাখেন না। সহজপাঠের কর্ম-পরিকল্পনায় সব সময় শিশুদের মর্যাদা ও অধিকার নিশ্চিত করার চেষ্টা করা হয়েছে। 

সহজপাঠের শুরু, গড়ে ওঠা, এগিয়ে চলা- সবই সম্ভব হয়েছে ২০ বছরের বেশি সময় ধরে শিশুশিক্ষা নিয়ে কাজ করতে করতে অভিজ্ঞ হয়ে ওঠা, শিক্ষায় নিবেদিতপ্রাণ একদল শিশুবান্ধব মানুষের হাত ধরে। প্রতিষ্ঠানটির কার্যক্রম পরিচালিত হয় ট্রাস্টি বোর্ড, সুহৃদ সংসদ, প্রকল্প ব্যবস্থাপনা পরিষদ, উপদেষ্টা পরিষদ এই ৪টি পরিষদের প্রত্যক্ষ সংযোগে। শুধু চালিকাশক্তিই নয়, এই ৪টি পরিষদ সহজপাঠের শিক্ষাদর্শনকে ধারণ ও লালন করে বলেই সহজপাঠ আজকের এই বিশ্বমানের শিশুবান্ধব শিক্ষাব্যবস্থার স্বপ্ন দেখতে পেরেছে।

সহজপাঠ-এর সহজ সাত শিশুশিক্ষার সহজ দর্শন

১. সহজপাঠ মানে শিশুর অভয়ারণ্য

প্রাতিষ্ঠানিক পরীক্ষায় ভালো ফলাফল দেখানোর প্রতিযোগিতার চেয়ে ভালো শিক্ষার্থী হবার প্রবণতা তৈরির লক্ষ্যে সহজপাঠ-এর যাত্রা শুরু। শিশুশিক্ষা গুরুমুখী বিদ্যা হতে পারে না। শিশুর নির্দ্বিধায় প্রশ্ন করার সুযোগ থাকতে হবে তার বিদ্যালয়ে। গুরুমুখী শিক্ষায় প্রশ্ন করার পরিসর সীমিত। সহজপাঠের শিক্ষকদের বলা হয় শিক্ষাকর্মী। সহজপাঠ শিশুদেরকে ‘শেখানো’-তে বিশ্বাসী নয়, বরং শিশুর শেখার ক্ষমতার যত্নে বিশ্বাসী। শিশুরা শেখে তাদের সহজাত স্বভাবে নানা উপকরণের সাহায্যে, নৃত্য-গীত-অভিনয় ও গল্প বলার মধ্যে এবং দৃষ্টান্ত উপস্থাপনের মাধ্যমে। শিক্ষাকর্মী শেখার পরিবেশ তৈরি করেন। বিদ্যালয়ে পাঠের গতানুগতিক চাপ না থাকায় শিশুরা শেখে নির্ভয়ে, আনন্দের সঙ্গে। নির্ভয়ে শিক্ষাকর্মীকে শিশু যেকোনো প্রশ্ন করতে পারে, তার নিজের মতো করে বিষয়টি বুঝে নেবার জন্যে। এই প্রক্রিয়ায় শিশুদের নানা রকম প্রশ্নে শিক্ষাকর্মী মাঝেমধ্যে বিব্রত হলেও ধীরে ধীরে শিশুদের প্রিয় হয়ে ওঠেন। মাতৃভাষার পাশাপাশি ইংরেজি ভাষার প্রতিও যথাযথ গুরুত্ব দেওয়া হয়। বাস্তব অভিজ্ঞতা থেকে শেখার ও প্রকৃতির কাছাকাছি যাওয়ার জন্যে শিশুদের নিয়মিত বিদ্যালয়ের বাইরে নিয়ে যাওয়া হয়। শিশুর সহজাত কল্পনাশক্তি ও সৃজনশীলতা বজায় রাখতে সহজপাঠ প্রতিটি শিশুর ব্যক্তিত্ব ও স্বকীয়তাকে সম্মান করে। ধর্ম, বর্ণ, লিঙ্গ, পারিবারিক সংস্কৃতি ও আঞ্চলিকতা, মেধা এমনকি কোনো ধরনের শারীরিক বা মানসিক প্রতিবন্ধকতার জন্য শিশুদের মধ্যে কোনো রকম বিভাজন বা বিভেদ সৃষ্টি করা হয় না। শিশুশিক্ষায় চাপিয়ে দেওয়া প্রচলিত নিয়মগুলো সাধারণত শিশুশিক্ষার পরিবেশে এক ধরনের আবদ্ধতা সৃষ্টি করে। সহজপাঠ চায় সামাজিক মূল্যবোধের জাগরণ ঘটাতে যাতে শিশুরা নিয়ম-শৃঙ্খলার মধ্যে থেকেও নিজেদের মতো করে চলায় আরাম খুঁজে পায়, নিজেদেরকে মুক্ত মনে করে।

২. সহজপাঠ মানে বাড়ির কাজের আনন্দ

সহজপাঠে দ্বিতীয় শ্রেণি পর্যন্ত নিয়মিত গতানুগতিক কোনো বাড়ির কাজ নেই। শিশু নিজে করতে পারবে এরকম প্রকল্প ধরনের উদ্ভাবনীমূলক কিছু কাজ থাকে বাড়িতে করার জন্যে। তৃতীয় শ্রেণি থেকে শিশুর নিয়মিত বাড়ির কাজ থাকে। এ সময় থেকে বাড়ির কাজ শিশুদের জন্যে বিশেষ জরুরি, কেননা বাড়ির কাজের মধ্য দিয়ে শিশুর পাঠের অভ্যাস গড়ে ওঠে এবং স্বকীয়তার বিকাশ ঘটে। শিশু তার বাড়ির কাজ নিজেই করবে। বাড়ির কাজ মানসম্পন্ন না হলেও শিশুর তিরস্কৃত হওয়ার সম্ভাবনা নেই। শেখানোর নিজ পদ্ধতি বা মতামত শিশুদের ওপর চাপিয়ে না দেওয়ার জন্যে অভিভাবকদের সহযোগিতা প্রয়োজন যাতে করে শিশুর ওপর দ্বৈত ধারার শিক্ষার প্রভাব না পড়ে এবং শিক্ষার মূল উদ্দেশ্য ব্যাহত না হয়। শিশু তার বাড়ির কাজ যথাসময়ে করছে কি না অভিভাবকরা অবশ্যই সেদিকে খেয়াল রাখবেন ও উৎসাহ দেবেন। বিদ্যালয় থেকে দেওয়া প্রকল্পভিত্তিক কাজের উপকরণ অভিভাবক যথাসময়ে সরবরাহ করবেন।

৩. সহজপাঠ মানে গৃহশিক্ষক নির্ভরতা কাটানো

শিশুর জন্য কোনো গৃহশিক্ষক থাকবে না। কোনো অভিভাবক বা আত্মীয়জনও শিশুর গৃহশিক্ষকের ভূমিকায় অংশ নেবেন না। কোনো শিশুর গৃহশিক্ষকের প্রয়োজন হলে বিদ্যালয় ও অভিভাবক আলোচনা করে ঠিক করবেন। বিদ্যালয়কে না জানিয়ে গৃহশিক্ষক রেখে শিশুকে লেখা-পড়ায় সাহায্য করার রীতিকে সহজপাঠ নীতিগতভাবে সমর্থন করে না- যা আসলে শিশুর বিকাশকেই বাধা দেবে বলে সহজপাঠ বিশ্বাস করে।

৪. সহজপাঠ মানে মেধাবিকাশবান্ধব পরীক্ষাপদ্ধতি ও মূল্যায়ন

নির্দিষ্ট বয়স পর্যন্ত শিশুর কাজ কেবল গ্রহণ ও ধারণ করা। নিত্যদিনের ক্রিয়াকলাপের মাধ্যমে নিরন্তর গ্রহণ-প্রক্রিয়ার মধ্যে বেড়ে ওঠে শিশু। যা কিছু শিখবে ও জানবে, তা ব্যাখ্যা-বিশ্লেষণ করতে পারা এক ধরনের দক্ষতা। পরীক্ষা এক ধরনের উপস্থাপনা যার উপযুক্ত বয়স আরও পরে। প্রচলিত পদ্ধতির মূল্যায়ন অবৈজ্ঞানিক ও শিশুর বিকাশের পথে বাধাস্বরূপ, কারণ প্রচলিত পদ্ধতিতে পরীক্ষার মাধ্যমে শিশুর গ্রহণ ও ধারণ করার ক্ষমতা যাচাই হয় না। যে কারণে সহজপাঠে তৃতীয় শ্রেণি পর্যন্ত প্রচলিত পদ্ধতির কোনো পরীক্ষা নেই কিন্তু শিশুর দৈনন্দিন কাজের ওপর ভিত্তি করে সহজপাঠের নিজস্ব মূল্যায়ন পদ্ধতি আছে। চতুর্থ শ্রেণি থেকে প্রচলিত নিয়মে পরীক্ষা শুরু হলেও সহজপাঠের নিজস্ব পদ্ধতির মূল্যায়ন প্রক্রিয়া চলমান থাকে।

৫. সহজপাঠ মানে শিশুর সামূহিক বিকাশে বাড়ির সংযোগ

শিশুর সামূহিক বিকাশের জন্য একটি প্রকৃত মানসম্পন্ন বিদ্যালয় যতটা জরুরি, বাড়িতে মা-বাবা ও অন্যান্য সদস্যদের ভূমিকাও ততটাই গুরুত্বপূর্ণ। এই দুই সামাজিক প্রতিষ্ঠান, বাড়ি ও বিদ্যালয় শিশুর বেড়ে ওঠার ক্ষেত্রে একে অপরের পরিপূরক নয়, দুটোই পৃথকভাবে গুরুত্বপূর্ণ। বাড়িতে মা ও বাবা দুজনেই শিশুর বেড়ে ওঠায় পারস্পরিক সমঝোতার মাধ্যমে অথবা যৌথভাবে তাৎপর্যপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে পারেন। মা-বাবা হওয়ার জন্যে কোনো মানুষের প্রশিক্ষণ বা শিক্ষার প্রয়োজন হয় না কিন্তু শিশুর অভিভাবক হয়ে উঠতে হয় কিছু বিষয়ে যথাযথ ভূমিকা পালনের মাধ্যমে।

৬. সহজপাঠ মানে শিশুর মনরাঙানো পোশাক

রুচিশীল পোশাক শিশুর ব্যক্তিত্ব গঠনে সহায়তা করে, আত্মবিশ্বাসী হতে ভূমিকা রাখে। সহজপাঠ-এ বিভিন্ন বয়সের শিশুর জন্য বিভিন্ন রঙের পোশাক নির্ধারণ করা আছে। উজ্জ্বল রঙের সুতি পোশাক, যার ধরনও খুব সাধারণ। খেলাধুলা, রান্নার ক্লাস, জলরং বা মাটির কাজ ও বিজ্ঞানাগারের কাজের জন্য আলাদা আলাদা পোশাক বা অ্যাপ্রনের ব্যবস্থা আছে।

৭. সহজপাঠ মানে এক হয়ে চলার বিভেদহীন বন্ধন 

শিশুদের বিদ্যালয় থেকে খাবার সরবরাহ করা হয়। বাড়ি থেকে খাবার আনতে শিশুকে নিরুৎসাহিত করা হয়। সকলে একসঙ্গে বসে দেশীয় ও ঋতুভিত্তিক খাবার খাওয়ার মধ্য দিয়ে সামাজিক দিক থেকে বিভেদহীন সম্পর্ক তৈরি হয়। 

একুশ শতকের অমিত সম্ভাবনাময় এই উন্মুক্ত  বিশ্বে শিশুবান্ধব সমাজ প্রতিষ্ঠার কোনো বিকল্প নেই। আপনি যদি প্রথাগত কিংবা গতানুগতিক মুখস্তবিদ্যানির্ভর শিক্ষাপদ্ধতির বদলে আপনার শিশুর জন্য, দেশের জন্য, কিংবা বুকভরা গর্ব নিয়ে বিশ্বের সাথে পাল্লা দিয়ে চলা এক অসম্ভব সুন্দর আগামীর স্বপ্ন দেখে থাকেন তাহলে যোগ দিন সহজপাঠ-এর এই শিক্ষাযাত্রায়।